কেন মুখে দুর্গন্ধ হয়? এর চিকিৎসা এবং প্রতিকার জেনে নিন

শ্বাস – প্রশ্বাসের দুর্গন্ধ সর্বদা মানুষ কে একটি বিবৃতিকর অবস্থায় ফেলে দেয়। দুর্গন্ধ যুক্ত শ্বাস – প্রশ্বাস কে বলা হয় “হিলিটোসিস”। এই দুর্গন্ধ মুখ, দাঁত, অথবা একটি অন্তর্নিহিত স্বাস্থ্য সমস্যা থেকে ও আসতে পারে। শ্বাসে দুর্গন্ধ একটি অস্থায়ী সমস্যা বা কোন দির্ঘস্থায়ী শারীরিক সমস্যা থেকে ও হতে পারে। অন্ততপক্ষে ৫০ শতাংশ প্রাপ্তবয়স্কদের তাদের জীবনকালের মধ্যে হ্যালিটোসিস হয়েছে।

bad breath, bad smell, teeth, tooth

দুর্গন্ধ যুক্ত শ্বাস প্রশ্বাসের উপসর্গ গুলো কি কি হতে পারেঃ

শ্বাস – প্রশ্বাসে যখন দুর্গন্ধ হয়, তখন মুখে এক ধরনের খারাপ স্বাদ অনুভনব হবে। অনেক সময় দেখা যায় যে, দাঁতে কোন খাদ্য কণা লুকায়িত থাকেনা, কিন্তু এরপরও মুখে বা শ্বাসে দুর্গন্ধ ছড়ায়। এবং অনেক সময় ব্রাশ বা মাউথ ওয়াশ ব্যবহার করলেও এই গন্ধ থেকেই যায়। তখন বুঝতে হবে যে, কোন শারীরিক সমস্যার দরুন এই দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। এবং এতে কোন ব্যক্তির নিজের কোন দোষ থাকেনা। অনেক সময় দেখা যায় যে, আমরা এর জন্য মানুষ কে দোষারোপ করি। কিন্তু খোজ নিলে দেখা যাবে যে, তার কোন দোষ এই নেই। এটা হতে পারে তার কোন প্রকার রোগ থেকে উৎপন্ন।

bad breath, bad smell, teeth, tooth



শ্বাস প্রশ্বাসে দুর্গন্ধের কারন সমূহঃ

  • ভারী যুক্ত খাবার খেলে বা কোমল পানীয় পান করলে হতে পারে

যখন পিয়াজ, রসুন বা ভারি জাতীয় কোন গন্ধ যুক্ত বা কোমল খাবার খাওয়া হয়, তখন এই গন্ধ টা বেশি পরিমানের ছড়ায়। খাবার কে হজম করানোর জন্য পিত্ত থলি থেকে এক রকম রস নির্গত হয় এবং এটি রক্ত ধারা এবং লিভার এর ভিতর দিয়ে ফুসফুসে যায়। তখন এক প্রকার গন্ধের উৎপত্তি হয়।

  • দাঁত অপরিষ্কার থাকার জন্য এমন টা হতে পারে

কোন প্রকার খাদ্য বা খাদ্য কণা যদি দাঁতে আটকিয়ে থাকে এবং টা সময় মত পরিষ্কার না করা হয় তবে এর থেকেও উৎকট গন্ধের সৃষ্টি হতে পারে। কারন তখন এর থেকে ব্যাকটেরিয়ার জন্ম হয়। ঠিক মত রাতে ব্রাশ না করলে এর থেকে প্লাক হতে পারে। এবং দাঁতের বিভিন্ন মজ্জায় সমস্যা হতে পারে। এবং এর থেকেও অনেক সময় উৎকট গন্ধ্য ছড়িয়ে থাকে।

  • ধূমপানের কারনে শ্বাস – প্রশ্বাসে তীব্র গন্ধ্য ছড়াতে পারেধূমপানের কারনে মুখে বা শ্বাসে উৎকট গন্ধ্যের সৃষ্টি হতে পারে। কারন ধূমপান এর দরুন সম্পূর্ণ মুখ এবং শ্বাস শুকিয়ে যায়। জার ফলে এক রকম দূর্ঘন্ধ্যের সৃষ্টি হতে পারে।

 bad breath, bad smell, teeth, tooth

  • মুখের ভিতরে শুষ্কতার জন্য ও এক প্রকার তীব্র গন্ধ্য তৈরি হতে পারে

যদি মুখে যথেষ্ট পরিমানে লালা তৈরি না হয় সে ক্ষেত্রে মুখের গন্ধ্য তীব্র হতে পারে। কারন লালা সর্বদা মুখের গন্ধ্য কে কমিয়ে আনে।

  • যদি নিঃশ্বাসে দিনের প্রত্যেক সময়ে সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর যেমন গন্ধ থাকে, তেমন গন্ধ পাওয়া যায়, তাহলে বুঝতে হবে মুখের ভেতর স্যালিভা শুকিয়ে গিয়ে ব্যাকটেরিয়া উৎপন্ন হচ্ছে।
  • সাইনাসের সমস্যা থাকলে নাকে ও গলায় মিউকাস জমে থাকে। তা থেকে দুর্গন্ধ তৈরি হয়। অ্যালার্জির কারণেও মুখে দুর্গন্ধ তৈরি হয়।
  • নিঃশ্বাসে যদি টক টক গন্ধ পাওয়া যায়, তাহলে বুঝতে হবে খাবারে প্রোটিনের মাত্রা অতিরিক্ত বেশি হয়েছে। কারণ, কিটোনের ভাঙন।
  • যদি নিঃশ্বাসে আঁশটে গন্ধ হয়, তাহলে বুঝতে হবে কিডনির সমস্যা রয়েছে। কিডনি ঠিকভাবে কাজ না করলে নাইট্রোজেন তৈরি হয়, যা দুর্গন্ধের জন্য দায়ী।
  • নিঃশ্বাসে পচে যাওয়া মাংসের দুর্গন্ধ পেলে বুঝতে হবে, টনসিলের সমস্যা রয়েছে। টনসিলের কারণে সালফার উত্পন্নকারী ব্যাকটেরিয়া জন্ম নেয়। যে কারণে দুর্গন্ধ তৈরি হয়।
  • লিভারের সমস্যাতেও মুখে দুর্গন্ধ তৈরি হয়। নিয়মিত দাঁত মেজেও এই দুর্গন্ধ যায় না।
  • কিডনী রোগ বা ডায়াবেটিস এর জন্য ও মুখে দূর্গন্ধ্যের সৃষ্টি হতে পারে।

bad breath, bad smell, teeth, tooth




শ্বাস – প্রশ্বাসে দূর্ঘন্ধ্যের জন্য প্রাথমিক চিকিৎসা

বেশি করে পানি খাবেন কেননা, পানি সর্বদা মুখ কে ভিজিয়ে রেখে লালা উৎপন্ন করতে সহায়তা করে।

bad breath, bad smell, teeth, tooth

শ্বাস – প্রশ্বাসে কে উৎকট গন্ধ্য থেকে প্রতিরোধ করার উপায় সমুহঃ

দিনে ২ বার ব্রাশ করা এবং সর্বদা ব্রাশ এর সাথে নিজের জিহ্বা কে পরিষ্কার করা। কেননা এর থেকে ব্যাকটেরিয়া ছড়ায়।

ধূমপান ত্যাগ করুন কেননা, এই ধূমপান মুখ কে শুকিয়ে ফেলে। প্রতি ৬ মাস অন্তর অন্তর ডাক্তার এর সরনাপন্ন হওয়া।

কি করলে আমারা আমাদের পোস্ট আরও ভাল করতে পারি এই বিষয়ে অবশ্যই মতামত প্রকাশ

করবেন। আরও কি টাইপের পোস্ট বা ক্যটাগরি আমরা যুক্ত করতে পারি এই বিষয়ে যদি মতামত

থাকে তাও ব্যাক্ত করার অনুরোধ রইল।

ধন্যবাদ।

 

 

No Responses

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *