স্বাস্থ্যের জন্য খেজুর কত টা উপকারি

খেজুর একটি দৈনন্দিন ফল। এটা আমাদের আশেপাশে সব বাজারে বিক্রি হয় এবং খুব সহজেই ক্রয় করা যায়। যদি আপনি ফাইবার, পটাসিয়াম খুঁজছেন, তাহলে খেজুর এর বিকল্প নেই। খেজুর অনেক পুষ্টিসমৃদ্ধ। ফলটি ছোট হলেও আপনাকে প্রয়োজনীয় পরিমাণে ভোজন করতে হবে।

খেজুর ভিটামিন বি ৬, এ এবং কে সমৃদ্ধ। হাড়ের বিকাশ এবং চোখের স্বাস্থ্যের উন্নতিতে এটি সাহায্য করে। খেজুর কোলন ক্যান্সারের মত বিপজ্জনক রোগ প্রতিরোধ করে।

date

শরীরের কার্যকারিতায় অন্যান্য খনিজ যেমন ক্যালসিয়াম, লোহা, পটাসিয়াম, প্রোটিন, ম্যাঙ্গানিজ, ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস, তামা ও সালফার ইত্যাদি খেজুর এ রয়েছে। এটি গর্ভাবস্থায় ভাল।

খেজুর- খেজুর গাছের ফল। এটি সম্ভবত প্রাচীনতম ফলিত ফলের মধ্যে একটি এবং মধ্যপ্রাচ্য দেশগুলিতে মূল খাদ্যের একটি অংশ। তারা ফার্সি উপসাগর কাছাকাছি কোথাও উৎপন্ন বলে বিশ্বাস করা হয়। রোপণের সময়, তারা একটি বাদাম অনুরূপ, বাদামী হয়ে ওঠে। বিভিন্ন ধরণের খেজুর আছে- নরম, আধা শুকনো এবং শুকনো এই তিনটি গ্রুপে শ্রেণীভুক্ত করা যায়। স্বাদ এবং আকারের মধ্যে সামান্য পার্থক্য ব্যতীত সকল ধরনের খেজুরগুলো সব ক্ষেত্রে একই।

খেজুর উভয় তাজা এবং শুকনো ফল হিসেবে পাওয়া যায়। মুসলমানরা পবিত্র মাস রমজানে তাদের রোযা ভঙ্গ করে এই সুস্যাদু ফলটি গ্রহন করে।

date


খেজুর এর স্বাস্থ্য গুনাবলি

১. কোষ্ঠকাঠিন্য এর জন্য খেজুর

একটি গবেষণায় দেখা গেছে, খেজুর কোষ্ঠকাঠিন্য চিকিত্সা সাহায্য করে। ফসলের মণ্ডলটি কোষের সংস্পর্শে আসে এমন খনিজ সামগ্রী সংশোধন করে। ডায়াবেটিসের ফাইবারগুলিও পাচনতন্ত্রের ক্যান্সার প্রতিরোধ করে।

২. হার্টের স্বাস্থ্য উন্নত

হার্টের স্বাস্থ্য উন্নত করতে খেজুর এর ভুমিকা অনন্য। খেজুর এর মধ্যে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টসমূহ এথেরোস্ক্লেরোসিস প্রতিরোধ করে, যা মূলত ধমনীতে হার্ড পেতে এবং প্লেক দিয়ে আবদ্ধ। এই অ্যান্টিঅক্সিডেন্টসমূহের ধমনী কোষ থেকে কোলেস্টেরল অপসারণ উদ্দীপিত। খেজুর কার্ডিওভাসকুলার রোগের ঝুঁকি কমাতে পরিচিত।

date

৩. কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রনে সাহায্য করে

একটি ইসরায়েলি গবেষণার মতে, খেজুর গ্রহণের ফলে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমে যায় যা অন্য ফল গ্রহণে হয় না। খেজুর এ কোন কোলেস্টেরল থাকে না।

৪. হাড়ের স্বাস্থ্য উন্নত

খেজুর ম্যাগনেসিয়াম, সেলেনিয়াম এবং ম্যাঙ্গানিজের উৎস – যা আপনার হাড়কে সুস্থ রাখতে এবং অস্টিওপোরোসিসের মতো হাড় সংক্রান্ত রোগ থেকে প্ররিত্ত্রান দেয়। খেজুর ভিটামিন কে সমৃদ্ধ, যা রক্তকোষযুক্ত এবং আপনার হাড়ের পরিশ্রুতিকে সহায়তা করে।

৫. রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে

খেজুর পটাসিয়াম সমৃদ্ধ, এবং খনিজ রক্তচাপের মাত্রা কমিয়ে সহায়তা করে। একটি খেজুর এর মধ্যে প্রায় ১৬৭ মিলিগ্রাম পটাসিয়াম রয়েছে।

৬. যৌন স্বাস্থ্য বৃদ্ধি

একজন ভারতীয় গবেষণার মতে, পুরুষের উর্বরতা বৃদ্ধি করার জন্য ঐতিহ্যবাহী ঔষধে খেজুর এর রস ব্যবহার করা হয়।




৭. ডায়রিয়া নিয়ন্ত্রণ করুন

কলাম্বিয়া ইউনিভার্সিটি মেডিক্যাল সেন্টারের একটি রিপোর্ট অনুযায়ী, ডায়রিয়া রোগ প্রতিকারে খেজুর সাহায্য করে। খেজুর এ পটাশিয়াম উচ্চ, তাই এটি এই রোগ উন্নত করতে সাহায্য করে।

৮. মস্তিষ্ক স্বাস্থ্য প্রচার

মস্তিষ্কে অক্সিডেটিভ চাপ এবং প্রদাহের বিরুদ্ধে সুরক্ষা প্রদান করে এই খেজুর। আরেকটি ওমান গবেষণা বলে যে খেজুর মস্তিষ্কের প্রদাহকে প্রতিরোধ করতে সহায়তা করে।

date

৯. কোলন ক্যান্সার প্রতিরোধ করে

খেজুর গ্রহণে কোলরেটাল ক্যান্সারের উন্নয়ন কমাতে পারে। খেজুর ব্যাকটেরিয়ার বৃদ্ধি হ্রাস করে এবং এটি কোলন ক্যান্সারকে প্রতিরোধ করে ।

১০. শক্তি বাড়ান

খেজুর এর মধ্যে অনেকগুলি পুষ্টি রয়েছে যা আপনার শক্তির মাত্রা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। এটি সুক্রোজ, ফ্রুকটাস, এবং গ্লুকোজ মত প্রাকৃতিক শর্করার রয়েছে – যা শক্তি বৃদ্ধি করে।

কি করলে আমারা আমাদের পোস্ট আরও ভাল করতে পারি এই বিষয়ে অবশ্যই মতামত প্রকাশ করবেন। আরও কি টাইপের পোস্ট বা ক্যটাগরি আমরা যুক্ত করতে পারি এই বিষয়ে যদি মতামত থাকে তাও ব্যাক্ত করার অনুরোধ রইল।

ধন্যবাদ।

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *