হাত পা ঘামার কারণ ও প্রতিকার

শীতের দিন বা যে কোন সময় হাত – পা ঘামা একটি বিরক্তিকর ব্যাপার হয়ে দাড়াতে পারে। কারো সাথে হাত মিলাতে গেলে, কম্পিউটার এ টাইপ করতে গেলে, বা যে কোন কিছু লিখতে গেলে ও অনেকে এই সমস্যার সম্মুখীন হয়ে থাকে। আবার অনেকের দেখা যায় পা ঘেমে যায় এবং এর থেকে দূর্গন্ধ্য  ছড়ায়, যার ফলে তখন একটি বিব্রিতিকর অবস্থায় পরে যেতে  হয়। আজ এই ব্যাপার নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হল।

sweating hand, hand wounds

হাত পা ঘামার কারন

হাত – পা ঘামার প্রাথমিক কারন হিসেবে তেমন কিছু পাওয়া যায় নি। তবে বিশেষজ্ঞরা বলেন যে, স্নায়বিক উত্তেজনার কারনে অনেকের ঘাম হয়ে থাকে, এবং তখনি কারো হাত – পা ঘামাতে পারে। যেমন কারো যদি ডায়াবেটিস জ্বর, থাইরয়েড, এবং শরীরে ভিটামিনের অভাব থাকে তবে তখন এই সমস্যা হতে পারে। এবং বেশিরভাগ সময় দেখা যায় যে, অতিরিক্ত মানুষিক চাপ এবং দুশ্চিন্তার কারনে এমন টা হয়ে থাকে। আবার অনেক বিশেষজ্ঞরা বলেন যে, এটি জেনিটিকাল সমস্যার কারনে ও হতে পারে। তবে ভয় পাওয়ার কিছু নেই, বিধাতা আমাদের যেমন রোগ দিয়েছেন, ঠিক তেমনি তার সাথে প্রতিষেধক ও দিয়ে দিয়েছে।

sweating hand, hand wounds



হাত পা ঘামানো থেকে বাঁচার উপায় বা তার প্রতিকার সমুহঃ

  • ক্যাফেইন, অতিরিক্ত চর্বি যুক্ত খাবার এরিয়ে চলার চেষ্টা করুন। মদ্য পান থেকে বিরত থাকুন। কেননা এটি শরীরের উত্তেজনা কে বাড়িয়ে দেয়। যার ফলে শরীর থেকে সকল লবন – পানি নির্গত হতে থাকে। এটি যারা “হাইপার হাইড্ররোসিস এ ভুগছেন তাদের জন্য বেশি কার্যকর হবে।
  • অ্যালকোহল যুক্ত হ্যান্ড ওয়েট টিস্যু ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন।

sweating hand, hand wounds

অ্যাপল সিডার ভিনেগার ব্যবহার করা

রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে হাল্কা গরম পানি দিয়ে হাত ধুয়ে নিন। এবং এরপর তুলা দিয়ে আলতো করে হাতে ভিনেগার পানিতে মিশিয়ে লাগিয়ে নিন। সকালে যখন ঘুম থেকে উঠবেন হাল্কা পাওডার লাগিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এরপর সামান্য পানি তে ভিনাগার এর সমপরিমাণ গোলাপ জল মিশিয়ে নিন। এবং কিছুক্ষন হাত ডুবিয়ে রাখুন। এরকম এক সপ্তাহ করলেই আশা করি ভাল ফলাফল পাবেন।

চা পাতা দিয়ে হাত ভিজিয়ে রাখুন

পানিতে হাল্কা পরিমাণে চা পাতা মিশিয়ে ৩০ মিনিট হাত কে ভিজিয়ে রাখুন। এতে করে হাতের টিসু গুলো ভাল থাকবে। এবং হাত ঘামা টা আস্তে আস্তে কমে আসবে।

প্রচুর পরিমাণে পানি পান করা

কেননা পানি শরীর এবং মস্তিষ্ক কে ঠাণ্ডা রাখতে সহযোগিতা করে। এবং শরীর কে স্বাভাবিক তাপমাত্রায় ফিরিয়ে আনে।



sweating hand, hand wounds

  • গোলাপ জল

গোলাপ জল এটি স্প্রে করে হাতে বা পায়ে ব্যবহার করতে পারেন। যার ফলে হাত ঘামানো কমে আসবে।

  • গ্রীন টি

গ্রীন টি আপনার শরীরের লোমকূপ গুলো কে বন্ধ করতে সহযোগিতা করে। যার ফলে শরীরের উত্তেজনা এবং ঘাম নিয়ন্ত্রণে রাখা যেতে পারে।

sweating hand, hand wounds

  • লেবুর রস

লেবুর রস এর সাথে হাল্কা পানি মিলিয়ে লাগাতে পারেন এতে আপনার হাতের স্কিন কোমল হতে সহয়ায়ক হবে।

  • আলুর ব্যবহার

আলু সর্বদা ঘাম কমাতে সহযোগিতা করে। আপনার হা বা পায়ে যে স্থানে বেশি ঘামে সেই স্থানে আলু কেটে ব্যবহার করতে পারেন। পরবর্তিতে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেললেন। এতে করে আপনার হাত বা পা ঘামানো কিছু টা কমে আসবে।

sweating hand, hand wounds

কিছু গুরুত্বপূর্ণ টিপস

  • যাদের হাত ঘামার অভ্যাস অনেক বেশি তারা সর্বদা সঙ্গে রুমাল রাখবেন।
  • প্রচুর পরিমাণে পানি পান করবেন।
  • এবং সর্বদা চেষ্টা করবেন ঠাণ্ডা পানি দিয়ে হাত ধৌত করার।
  • এবং হাতে বা পায়ে রাতে সোয়ার পূর্বে পেট্রোলিয়াম জেলি ব্যবহার করুন।

কি করলে  আমারা  আমাদের পোস্ট আরও ভাল করতে পারি এই বিষয়ে অবশ্যই মতামত প্রকাশ

করবেন। আরও কি টাইপের পোস্ট বা ক্যটাগরি আমরা যুক্ত করতে পারি এই বিষয়ে যদি মতামত

থাকে তাও ব্যাক্ত করার অনুরোধ রইল।

ধন্যবাদ।

No Responses

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *